বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ড গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৩ August ২০১৮

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৩২তম বৈঠক বোর্ডে অনুষ্ঠিত এবং রাজশাহী রেশম কারখানার বর্তমান কার্যক্রম পরিদর্শন


প্রকাশন তারিখ : 2018-08-10

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৩২তম বৈঠক বোর্ডে অনুষ্ঠিত এবং

রাজশাহী রেশম কারখানার বর্তমান কার্যক্রম পরিদর্শন

আজ সকালে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি জনাব সাবের হোসেন চৌধূরী এর নেতৃত্বে কমিটির সদস্যগণ রাজশাহী রেশম কারখানা পরিদর্শন করেন। সদস্যগণ রাজশাহী রেশম কারখানায় পরীক্ষামূলকভাবে চালু হওয়া ৫টি পাওয়ার লুমের বিভিন্ন পর্যায় ঘুরে ঘুরে দেখেন। পরিদর্শনকালে সদস্যগণ রেশম উন্নয়ন বোর্ড থেকে উৎপাদিত সুতা দিয়ে কারখানায় তৈরীকৃত খাঁটিঁ রেশম কাপড় এবং রেশম কারখানার বর্তমান কার্যক্রম সম্পর্কে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। সদস্যগণ রেশম কারখানায় তৈরীকৃত গরদের কাপড়, সুপার বলাকা দেখে উচ্ছ্বসিত হন এবং রেশম কারখানাকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সার্বিক সহযোগিতার বিষয়টি সকলকে আশ্বস্ত করেন। এ সময় রাজশাহী-২ আসনের সংসদ সদস্য এবং বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ডের পরিচালনা পর্ষদের জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান ফজলে হোসেন বাদশা এবং বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: ফয়জুর রহমান চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

১০ম জাতীয় সংসদের ‍‍বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৩২তম বৈঠক গতকাল ০৯-০৮-১৮ খ্রি: তারিখ রোজ বৃহস্পতিবার বিকালে বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ডের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভায় সভাপতিত্ব করেন ঢাকা-৯ আসনের সংসদ সদস্য জনাব সাবের হোসেন চৌধুরী।

সভায় বস্ত্র বিল-২০১৮ এবং রেশম উন্নয়ন বোর্ডের বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা হয়।

সভায় সভাপতি মহোদয় বস্ত্র বিল-২০১৮ সংশোধন সাপেক্ষে তা আইন মন্ত্রণালয়ে প্রেরণসহ পরবর্তীতে জাতীয় সংসদে প্রেরণ করা হবে মর্মে জানান। এছাড়া রেশম উন্নয়ন বোর্ডের আলোচনাকালে রেশম শিল্পের উন্নয়নের জন্য মেগা প্রকল্প গ্রহণের বিষয়েও একমত পোষন করেন। তিনি আজ ১০-০৮-১৮খ্রি: তারিখ সকালে রেশম গবেষণার সভাকক্ষে রেশম গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট এর কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত হন। এ সময় তিনি বলেন, রেশম শিল্পের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এর সুষ্ঠু সমন্বয়, পরিকল্পনা ও তদারকি প্রয়োজন। রেশম বোর্ড ও রেশম গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট একত্রে হলেও সমন্বয়ের জন্য দ্রুত সাংগঠনিক কাঠামো অনুমোদন হওয়া প্রয়োজন বলে জানান। তিনি ২০২১ সালের মধ্যে রেশমের উৎপাদন ১০০ মেট্রিক টনে উন্নীত করার বিষয়ে জোর দেন। এছাড়া তিনি বস্ত্র বিল -২০১৮ অনুমোদনের পর পাট ও রেশম এর সমন্বয়ে কোন নতুন পণ্য তৈরী করা যায় কিনা বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তিনি ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নের জন্য তুঁতপাতার ও রেশম কীটের উন্নত জাতের বর্তমান পর্যায় থেকে আরও উন্নত করার বিষয়ে তাগিদ দেন।

গতকাল স্থায়ী কমিটির সভায় বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম বলেন, রেশম শিল্পের ব্যাপক উন্নয়নের জন্য মেগা প্রকল্প গ্রহণ করা প্রয়োজন। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করে যেতে হবে। রেশমের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে হবে। এজন্য সকলকে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাওয়ার নির্দেশনা দেন।

সভায় রাজশাহী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ডের পরিচালনা পর্ষদের জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, রেশম বোর্ড প্রতিষ্ঠার মূল কারিগর হলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি বলেন, নব্বই দশকের পর থেকে রেশম শিল্পের অবনতি হতে থাকে। বর্তমানে আবার সকলের সহযোগিতায় এই শিল্পকে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চলছে ।

 

সভায় সাবকমিটি কর্তৃক প্রস্তুতকৃত "বস্ত্র বিল, ২০১৮ এর বিভিন্ন দফা সংযোজন বিয়োজন করা হয়। অন্যদিকে রেশম উন্নয়ন বোর্ডের কার্যক্রম সভায় অবহিত করা হয়। রেশম উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মু: আবদুল হাকিম রেশম শিল্পের উন্নয়নের জন্য মেগা প্রকল্প গ্রহণ, রেশম কারখানা পরিচালনা বাবদ তহবিল সংগ্রহ, চীন-ভারত থেকে উন্নত প্রযুক্তি গ্রহণসহ রেশম চাষীদেরকে সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনীতে অর্ন্তভুক্তকরণ, রেশম চাষী ও বসনীদের ডাটা বেজ প্রস্তুতকরণ সংক্রান্ত বিষয়গুলি সভায় তুলে ধরেন।

 

স্থায়ী কমিটির সভায় কমিটির সদস্য ও  ঢাকা-১৯ আসনের সংসদ সদস্য  ডা: মো: এনামুর রহমান, স্থায়ী কমিটির সদস্য ও  মহিলা আসন-৩৫ এর সংসদ সদস্য বেগম সাবিনা আক্তার তুহিন, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: ফয়জুর রহমান চৌধুরী, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব(বস্ত্র-২ ও অডিট) গুলনার নাজমুন নাহার, জেডিপিসি এর নির্বাহী পরিচালক রীনা পারভীন, বস্ত্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইসমাইল, তাঁত বোর্ডের চেয়ারম্যান মো: মিজানুর রহমান, পাট অধিদপ্তরের প্রতিনিধি জনাব মো: আব্দুল জলিল, বিজেএমসির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহেদ সবুর, বোর্ডের সদস্য ও বারেগপ্রই এর পরিচালক সৈয়দা জেবিননিছা সুলতানা,  মো: রফিকুল হাসান, উপসচিব লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ, রেশম উন্নয়নে বোর্ডের সদস্য এম. এ. মান্নান, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রলালয়ের এবং বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ে কর্মরত উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ  উপস্থিত ছিলেন।


Share with :

Facebook Facebook